Breaking News

2021 সালের এস এস সি পরীক্ষার্থীদের ৬ষ্ঠ সপ্তাহের এ্যাসাইনমেন্ট অর্থনীতি উত্তর

2021 সালের এস এস সি পরীক্ষার্থীদের ৬ষ্ঠ সপ্তাহের এ্যাসাইনমেন্ট বাংলাদেশের অর্থনীতি উত্তর

সকল শ্রেণীর এ্যাসাইনমেন্ট সবার আগে পেতে আমাদের সোসাল মিডিয়া গুলোর সাথে যুক্ত থাকতে পারেন।

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল  Sobuj Computer  সাবসক্রাইব করতে পারেন।

পাশে থাকা ফেসবুক পেইজ লাইক দিয়ে একটিভ থাকুন।

আরো বিস্তারিত জানতে আমাদের সাথেই থাকুন ।

২০২১ সালের শিক্ষার্থীদের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট (৬ষ্ঠ সপ্তাহের জন্য)

২০২১ সালের এস এস সি শিক্ষার্থীদের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট (৬ষ্ঠ সপ্তাহের জন্য)

করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষিত রাখতে সব স্কুল-কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। এ পরিস্থিতে তাই মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অফিদপ্তর থেকে এ্যাসাইমেন্ট পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে শিক্ষার্থীদের সুরক্ষিত রাখতে এই সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।

২০২১ সালের শিক্ষার্থীদের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট (৬ষ্ঠ সপ্তাহের জন্য)

২০২১ সালের শিক্ষার্থীদের জন্য অ্যাসাইনমেন্ট (৬ষ্ঠ সপ্তাহের জন্য) অর্থনীতি প্রশ্ন

২০২১ সালের S.S.C ষষ্ঠ সপ্তাহের অর্থনীতি এসাইনমেন্ট এর উত্তর শুরু এখান থেকে………….

নির্দেশক প্রশ্নঃ

ক) চাহিদা রেখা অংকন ও ব্যাখ্যা

খ) যোগান রেখা অংকন ও ব্যাখ্যা

গ) ভারসাম্য দাম ও পরিমাণ নির্ধারণ

ঘ) পছন্দমত দ্রব্যের চাহিদা সূচি ও রেখা অঙ্কন

এসাইনমেন্টে ভাল নম্বর পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের উত্তর ভালভাবে পড়ে ধারনা নিয়ে তারপর নিজে নিজে লিখো। এতেকরে সর্বোচ্চ মার্ক পাওয়ার নিশ্চয়তা বাড়বে।

ক) চাহিদা রেখা অংকন ও ব্যাখ্যা




চাহিদা: সাধারণত চাহিদা শব্দের অর্থ হচ্ছে কোন দ্রব্য পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা বা ভোগ করার ইচ্ছা। তবে অর্থনীতিতে চাহিদা শব্দটি বিশেষ অর্থ বহন করে। এখানে আকাঙ্ক্ষার সাথে সামর্থ্য বিশেষভাবে জড়িত। চাহিদা হচ্ছে কোনো দ্রব্য পাওয়ার ইচ্ছা বা আকাঙ্ক্ষা যা নির্ভর করে ক্রয়ক্ষমতা এবং অর্থ খরচ করে ঐ দ্রব্যটি ক্রয় করার ইচ্ছার উপর। শুধুমাত্র কোনো দ্রব্য পাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করলেই তা চাহিদা হবে না।

একজন দিনমজুর কাজের ফাঁকে বিশ্রাম নিতে গিয়ে পাশে রাখা দামি গাড়িটি পাওয়ার ইচ্ছা হলো। কিন্তু গাড়িটি কেনার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ তার কাছে নেই। তাহলে ইহাকে চাহিদা বলা যাবে না। আবার, ধরুন আপনার আইসক্রীম খেতে ইচ্ছে করল এবং আইসক্রীম কেনার জন্য অর্থ আছে। কিন্তু অর্থ খরচ করে আইসক্রীম কেনার ইচ্ছা নেই। এটিকেও চাহিদা বলা যাবে না।

সুতরাং অর্থনীতিতে চাহিদা হতে হলে তিনটি শর্ত পূরণ করতে হয়। যথা

(১) কোনো দ্রব্য পাওয়ার ইচ্ছা বা আকাঙ্ক্ষা

(২) দ্রব্যটি কেনার জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ

(৩) অর্থ খরচ করে দ্রব্যটি কেনার ইচ্ছা।

চাহিদা সূচি: অন্যান্য অবস্থা অপরিবর্তিত থাকা অবস্থায় কোন দ্রব্যের দাম ও চাহিদার পরিমাণের মধ্যে সম্পর্ককে যে সারণির মাধ্যমে দেখানো হয় তা হচ্ছে চাহিদা সূচি। সারণি-১ এ মাস্কের কাল্পনিক চাহিদা সূচি দেখানো হয়েছে। প্রতিটি দামে ভোক্তা যে পরিমাণ মাস্ক ক্রয় করে তা নির্ধারণ করতে পারি। সারণিতে, প্রতিটি ৩০০ টাকা দামে ভোক্তা ৬টি মাস্ক ক্রয় করে, ২০০ টাকা দামে ৮টি এবং ১০০ টাকা দামে ১০টি মাস্ক ক্রয় করে।

এভাবে সারণি থেকে দেখা যায়, প্রতিটি মাস্কের দাম যত কমছে মাস্কের চাহিদার পরিমাণ তত বাড়ছে। 

চাহিদা রেখা: চাহিদা সূচি অনুযায়ী আমরা দেখতে পাচ্ছি যে, একটি নির্দিষ্ট সময়ে চাহিদার অন্যান্য নির্ধারণসমূহ স্থির থাকা অবস্থায় দ্রব্যের দামের উপর দ্রব্যটির প্রকৃত ক্রয়ের পরিমাণ নির্ভর করে। রেখাচিত্রের মাধ্যমে চাহিদা সূচির প্রকাশই হচ্ছে চাহিদা রেখা। চিত্র ১ এ OY বা লম্ব অক্ষে মাস্কের দাম ও OX বা ভূমি অক্ষে মাস্কের চাহিদার পরিমাণ দেখানো হয়েছে। DD হচ্ছে ভোক্তার মাস্কের চাহিদা রেখা। এই রেখার a, b, c বিন্দুগুলোতে বিভিন্ন দামে চাহিদার বিভিন্ন পরিমাণ প্রকাশ পায়। যেমন, b বিন্দু দ্বারা বোঝা যায়, ২০০ টাকা দামে ভোক্তার মাসে মাস্কের চাহিদার পরিমাণ ৮টি। আবার c বিন্দুতে ১০০ টাকা দামে মাস্কের চাহিদা পরিমাণ ১০টি। অর্থাৎ  দাম ও চাহিদার মধ্যে বিপরীত সম্পর্ক বিদ্যমান। দাম কমার সাথে সাথে চাহিদার পরিমাণ বাড়তে থাকে এবং চাহিদা রেখাটি বাম থেকে ডান দিকে নিম্নগামী হয়ে থাকে।

খ) যোগান রেখা অংকন ও ব্যাখ্যা





যোগান: সাধারণ অর্থে যোগান হচ্ছে কোনো দ্রব্যের মজুদ পরিমাণ। কিন্তু অর্থনীতিতে যোগান বলতে বোঝায় বাজারে একটি নির্দিষ্ট সময়ে একটি নির্দিষ্ট দামে কোনো দ্রব্যের যে পরিমাণ সরবরাহ থাকে। কোনো দ্রব্যের মজুদ বলতে বোঝায় একটি নির্দিষ্ট সময়ে ও একটি নির্দিষ্ট দামে বাজারে ঐ দ্রব্যটির কি পরিমাণ সরবরাহ রয়েছে। কিন্তু যোগান হচ্ছে একটি নির্দিষ্ট দামে ও সময়ে বিক্রেতা কোনো দ্রব্যের কি পরিমাণ মজুদ বিক্রি করতে প্রস্তুত।

অর্থাৎ, একটি নির্দিষ্ট সময়ে নির্দিষ্ট দামে বিক্রেতা বাজারে কোন দ্রব্য বা সেবার যে পরিমাণ বিক্রি করার সামর্থ্য রাখে তা হচ্ছে যোগানের পরিমাণ। অর্থনীতিতে যোগান শব্দটি দাম ও যোগানের পরিমাণের মধ্যে সম্পর্ককে নির্দেশ করে। চাহিদার মত যোগানও স্থির সংখ্যা নয়। যোগান  দেখায়, কিভাবে দামের সাথে সাথে যোগানের পরিমাণ পরিবর্তিত হয়। একটি নির্দিষ্ট সময়ে বিক্রেতা বাজারে যে পরিমাণ যোগান দেয় তা নির্ভর করে দ্রব্যটির দামের উপর এবং যোগানের উপর প্রভাব বিস্তারকারী অন্যান্য উপকরণসমূহের উপর।

যোগান সূচি: চাহিদা সূচির মত যোগান সূচিকে একটি ছকের মাধ্যমে প্রকাশ করা হয় যা দ্রব্যের দাম ও যোগানের পরিমাণের মধ্যে সম্পর্ক দেখায়। সারনি-২ এ মাস্কের যোগান সূচি দেখানো হলো-

সারনি-২ এ দেখা যাচ্ছে যে, মাস্কের দাম বৃদ্ধি পাবার সাথে সাথে মাস্কের যোগানের পরিমাণও বৃদ্ধি পাচ্ছে, যখন অন্যান্য বিষয় (যা বিক্রেতার বিক্রির পরিমাণকে প্রভাবিত করতে পারে) অপরিবর্তিত থাকে।

যোগান রেখা: সারনি-২ এর যোগানসূচিকে আমরা যোগান রেখার সাহায্যে উপস্থাপন করতে পারি। চিত্র -২ এ OX অক্ষে মাস্কের দাম ও OY অক্ষে মাস্কের যোগানের পরিমাণ দেখানো হয়েছে। মাস্কের দাম ও মাস্কের যোগানের পরিমাণ- এই দুইয়ের বিভিন্ন সংমিশ্রণ a, b, c এই বিন্দুগুলোর মাধ্যমে প্রকাশ পায়। a, b, c এই বিন্দুগুলো যোগ করে বাম থেকে ডানদিকে উর্ধ্বগামী যোগান রেখা পাই। সুতরাং যোগান রেখা দ্রব্যের দাম ও যোগানের পরিমাণের মধ্যে সমমুখী সম্পর্ককে প্রকাশ করে।

অর্থাৎ, দ্রব্যের দাম বৃদ্ধি পেলে যোগান বৃদ্ধি পায় এবং দ্রব্যের দাম হ্রাস পেলে যোগান হ্রাস পায়।

গ) ভারসাম্য দাম ও পরিমাণ নির্ধারণ

ভারসাম্য দাম: চাহিদা ও যোগানের পারস্পরিক ক্রিয়া প্রতিক্রিয়ার মাধ্যমে বাজারে দ্রব্যের দাম ও পরিমাণ নির্ধারিত হয়। বাজারে কিভাবে দাম নির্ধারিত হয় তা বিশ্লেষণের জন্য ভোক্তার চাহিদা ও বিক্রেতার যোগানের মধ্যে তুলনা করতে হবে এবং দেখতে হবে কোথায় চাহিদা ও যোগান পরস্পর সমান। সারণি-৩ ও চিত্র-৩ এ ব্যাপারে আমাদেরকে সাহায্য করবে।

ঘ) পছন্দমত দ্রব্যের চাহিদা সূচি ও রেখা অঙ্কন




চিত্রে বাজার চাহিদা রেখা (DD) ও বাজার যোগান রেখা (SS) পরস্পরকে e বিন্দুতে ছেদ করেছে। এই e বিন্দুতে বাজার ভারসাম্য বদ্যমান। ভারসাম্য হচ্ছে এমন একটি অবস্থা যেখানে একটি নির্দিষ্ট দামে চাহিদার পরিমাণ ও যোগানের পরিমাণ সমতায় পৌঁছে। চাহিদা ও যোগানের ছেদবিন্দুতে যে দাম বিদ্যমান তা হচ্ছে ভারসাম্য দাম এবং দ্রব্যের পরিমাণ হচ্ছে ভারসাম্য পরিমাণ। চিত্রে, ভারসাম্য দাম ২০০ টাকা এবং ভারসাম্য পরিমাণ ৮টি। ভারসাম্য দামে ভোক্তা বা ক্রেতা যে পরিমাণ দ্রব্য ক্রয় করতে ইচ্ছুক এবং বিক্রেতা যে পরিমাণ দ্রব্য বিক্রি করতে রাজি থাকে এ দু’য়ের পরিমাণ সমান থাকে। এই ভারসাম্য দামকে মাঝে মাঝে market clearing price ও বলা হয়। কারণ- এ দামে বাজারে ক্রেতা ও বিক্রেতা উভয়ই সন্তুষ্ট থাকে।

আমাদের কাজের মধ্যে কোন প্রকার ভুল ত্রুটি দেখা গেলে আমাদেরকে কমেন্ট করে জানান। প্রতি সপ্তাহের সকল বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের উওর আপডেট পেতে আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করতে পারেন। আমাদের কাছ থেকে ন্যূনতম সাহায্য পেয়ে থাকলে আপনাদের অন্যান্য বন্ধুদের সাথে ওযেবসাইটটিকে। ফেসবুকে শেয়ার দিতে পারেন।

 

আপনি যা খুজতেছেন………..

চতুর্থ সপ্তাহের অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এসএসসি ২০২১,এসএসসি ২০২১ ৪র্থ সপ্তাহের অর্থনীতি এসাইনমেন্ট ৩,চতুর্থ সপ্তাহের অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর,এসএসসি ২০২১ অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট,এসএসসি ২০২১ অর্থনীতি এসাইনমেন্ট,চতুর্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এসএসসি ২০২১,এসএসসি চতুর্থ সপ্তাহের অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এর সমাধান,এসএসসি অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১,অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এসএসসি ২০২১,এসএসসি ২০২১ অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান,অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এর সমাধান চতুর্থ সপ্তাহ

চতুর্থ সপ্তাহের অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এসএসসি ২০২১,এসএসসি ২০২১ ৪র্থ সপ্তাহের অর্থনীতি এসাইনমেন্ট ৩,চতুর্থ সপ্তাহের অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর,এসএসসি ২০২১ অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট,এসএসসি ২০২১ অর্থনীতি এসাইনমেন্ট,চতুর্থ সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এসএসসি ২০২১,এসএসসি চতুর্থ সপ্তাহের অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এর সমাধান,এসএসসি অ্যাসাইনমেন্ট ২০২১,অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এসএসসি ২০২১,এসএসসি ২০২১ অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট সমাধান,অর্থনীতি অ্যাসাইনমেন্ট এর সমাধান চতুর্থ সপ্তাহ

About sobujcomputer

Check Also

৯ম শ্রেণীর ১৮ তম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এর উত্তর বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা

৯ম শ্রেণীর ১৮ তম সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট এর বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা উত্তর অ্যাসাইনমেন্ট এর উত্তর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *